নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি ২০২৩

আজ আমি নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি বা নগদ একাউন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত নিয়ে আলোচনা করব। আমরা এক সময়  হাতে হাতে টাকা আদান প্রদান করতাম।

অনলাইনে টাকা আদান প্রদান করার চিন্তা কখনই করতাম না। কিন্তু প্রযুক্তির ছোঁয়ায় আমরা এখন অনলাইন ভিত্তিক হয়ে গেছি।

অর্থাৎ আমরা অনলাইনেও টাকা আদান প্রদান করা শুরু করে দিয়েছে যা প্রযুক্তির এক অনন্য দৃষ্টান্ত।

এই প্রযুক্তির সংস্পর্শে এসে বাংলাদেশ অনেক ধাপ এগিয়ে গিয়েছে।

এখন বাংলাদেশেই বিদ্যমান রয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা যেগুলোর মাধ্যমে আমরা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নির্দ্বিধায় টাকা আদান প্রদান করতে পারি।

আর এই ডিজিটাল মোবাইল ব্যাংকিং সেবা গুলো হলো বিকাশ, রকেট, উপায়।

কিন্তু এই সেবাগুলোর কিছু আছে যেগুলোতে অনেক চার্জ কেটে নেয় যখন আমরা টাকা আদান প্রদান করি।

এজন্যই আমাদের সরকার এই নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা এনেছে।

কেননা এতে টাকা আদান প্রদানের সময় খুব কম চার্জ রাখা হয় যা আমাদের অনুকূলে।

তবে জেনে রাখা ভালো বাংলাদেশ ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনে হচ্ছে এই নগদ সেবা প্রতিষ্ঠান।

আর এটি টাকা আদান প্রদানের সেবা যা মোবাইলের সাথে সম্পর্কিত। থার্ড ওয়েভ টেকনোলজি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা পরিচালনা করেন।

২০১৮ সালের ১১ নভেম্বর নগদ প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা শুরু হয়।

আজকে আমি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা  নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব ইনশাআল্লাহ। আসুন জেনে নেই নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি এবং এর কিছু চমৎকার সুবিধা যা আমরা এই সেবাটি গ্রহণ করার মাধ্যমে পেতে পারি।

নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি গুলো জেনে নিন 

নগদ একাউন্ট তিনটি নিয়মে খোলা যায়। এগুলো হলোঃ

  1. ইউএসএসডি কোডের মাধ্যমে খুলতে পারবেন।
  2. মোবাইলে অ্যাপস এর সহযোগিতায়। 
  3. নিকটবর্তী নগদ অফিসে গিয়ে এজেন্টের মাধ্যমে একাউন্ট খোলা। 

চলুন জেনে নেই কিভাবে ইউএসএসডি কোডের মাধ্যমে নগদ একাউন্ট খুলবেন।

নগদ একাউন্ট খোলার জন্য যা যা অপরিহার্য 

আমরা ইতিপূর্বে জেনেছি নগদ একাউন্ট তিনটি পদ্ধতিতে খোলা যায়।

প্রত্যেকটি পদ্ধতির জন্য কিছু জিনিস আপনার প্রয়োজন হবে যেগুলোর মাধ্যমে আপনি আপনার নগদ একাউন্ট খুলতে পারবেন।

তবে আপনি যেই উপায় খুলেন না কেন আপনার এই জিনিসগুলো অবশ্যই থাকতে হবে। এগুলো হলোঃ

  • একটি ভালো মোবাইলেই সচল সিম থাকতে হবে।
  • ন্যাশনাল আইডি কার্ড এবং নগদ মোবাইল অ্যাপ প্রয়োজন হবে। 
  • পাসপোর্ট সাইজের ২ কপি ছবি আপনার সাথে থাকতে হবে।

এনআইডি কার্ড ছাড়া নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি জেনে নেই 

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যাদের এনআইডি কার্ড নেই। তাই তাদের এই ব্যাপারে কোনো দুশ্চিন্তা প্রয়োজন নেই।

আপনারা ইউএসএসডি কোডের মাধ্যমে নগদ একাউন্ট খুলতে পারবেন। কেবল দুটি পদ্ধতি অনুসরণ করলেই আপনি নগদ একাউন্ট খুলতে পারবেন।

  1. প্রথমে আপনি মোবাইলে ডায়াল অপশনে যাবেন। তারপর সেখানে *১৬৭# টাইপ করবেন। 
  2. তারপর পিন সেট করার জন্য আপনাকে বলবে।
  3. তখন আপনি চার ডিজিটের এমন পিন সেট করবেন যেটা আপনি ছাড়া অন্য কেউ জানবে না।
  4. এখন পুনরায় পিন নিশ্চিত করার জন্য আবার চার ডিজিটের পিন সেট করবেন।
  5. পরিশেষে আপনার নগদ একাউন্টে খুলে গেল। এখন যত ইচ্ছা তত লেনদেন করতে পারবেন। 

মোবাইল অ্যাপস দিয়ে নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি জেনে নেই

মোবাইলে অ্যাপস ব্যবহার করেও আপনি নগদ একাউন্ট খুলতে পারবেন। তাই আপনি মোবাইলের প্লে স্টোরে যাবেন।

তারপর সার্চ বারে Nagad লিখে সার্চ করবেন। ফলে তাদের অফিসিয়াল অ্যাপসটি আপনাদের সামনে চলে আসবে ইনশাআল্লাহ। 

  1. এখন অ্যাপটি ডাউনলোড করার পর ইন্সটল করবেন। 
  2. তারপরে অ্যাপসটি ক্লিক করার মাধ্যমে ওপেন করবেন।
  3. ওপেন করার পর রেজিস্ট্রেশন বিভাগে ক্লিক করুন।
  4.  তারপর যেই নাম্বারে নগদ একাউন্ট খুলতে যাচ্ছেন ওই নাম্বারটি টাইপ করুন এবং পরবর্তী অপশনে চাপ দিন।
  5. এখন আপনাদের সিম অপারেটর সিলেক্ট করার জন্য বলবে। আপনি যদি গ্রামীন, বাংলালিংক অথবা রবি সিম অপারেটর ব্যবহার করে থাকেন তাহলে যেকোনো একটি  সিলেক্ট করবেন। 
  6. তারপর এনআইডি কার্ডের ছবি প্রয়োজন হবে। তবে এনআইডি কার্ডের উপরের এবং পিছনের ছবি তুলতে হবে।
  7. এখন তা সাবমিট করবেন এবং পরবর্তী অপশনে চাপ দিন। 
  8. এখন আপনাকে একটি ডায়ালগ বক্সে নিয়ে আসবে। এখন আপনাকে নিজের ছবি সাবমিট করার জন্য বলবে। 
  9. তবে একটা জিনিস মাথায় রাখতে হবে ছবি তোলার সময় অবশ্যই ছবিটি স্পষ্ট হতে হব। অর্থাৎ যখন ছবি তুলবেন আপনার চারপাশে যেন পরিষ্কার থাকে এবং ভালো থাকে। সুন্দরভাবে ছবিটি তোলার পর তার সাবমিট করতে হবে। এখন পরবর্তী ধাপে অগ্রসর হোন।
  10. এখন পিন সেটআপ করার ধাপ আসবে। আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী চার ডিজিটের পিন বসাবেন। তারপর পরবর্তী অপশনে চাপ দিয়ে কনফার্ম পিন  অপশনে আগের পিন বসান। এখন পরবর্তী অপশনে চাপ দিন।
  11. সর্বশেষে একাউন্ট ভেরিফিকেশনের জন্য নগদ থেকে আপনার মোবাইলে একটি ওটিপি কোড পাঠানো হবে।
  12. এই কোডটি সঠিকভাবে ওটিপি ঘরে বসাবেন। পরিশেষে সব ঠিকঠাকভাবে করে থাকলে আপনার অ্যাকাউন্ট খোলা হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ। 

এজেন্টের মাধ্যমে নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি

আপনি যদি চিন্তা করেন উপরের পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করে আপনি নগদ একাউন্ট খুলতে পারবেন না।

তাহলে নিকটবর্তী নগদ অফিসে গিয়ে এজেন্টের মাধ্যমে একাউন্ট খুলতে পারবেন। এর জন্য আপনি সাথে কিছু অপরিহার্য জিনিস নিয়ে যেতে হবে।

এগুলো হলো এনআইডি কার্ড, পাসপোর্ট সাইজের ২ কপি ছবি এবং যেই সিম দিয়ে একাউন্ট খুলতে  চাচ্ছেন ঐ সিমটি সাথে নিয়ে যেতে হবে।

তারপর নগদ অফিসে গেলে তারা আপনাকে একটি ফর্ম দিবে ফিলাপ করার জন্য।

এই ফর্মটি ফিলাপ করার পর ৫০ টাকা ক্যাশ ইন করবেন একাউন্টটি একটিভ করার জন্য।

পরিশেষ এই আপনার নগদ একাউন্ট তৈরী হয়ে গেল।

নগদ ইসলামিক একাউন্ট কি

একজন মুসলিম হিসেবে আমাদের প্রত্যেকেরই উচিত ইসলামের নিয়ম কানুন মেনে চলা।

মুসলিম দেশগুলোর কথা চিন্তা করে নগদ নাগরিকদের জন্য ইসলামিক অ্যাকাউন্ট তৈরি করেছে।

মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে নগদ এই প্রথম এই ইসলামিক অ্যাকাউন্ট তৈরি করে।

এখানে আপনি ভবিষ্যতের জন্য টাকা জমা করতে পারবেন।

কিন্তু কোন প্রকার সুদ বা মুনাফা আপনার একাউন্টে জমা হবে না যা মুসলিমদের জন্য একটি সুসংবাদ।

পাশাপাশি অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাগুলো একই থাকবে।

আপনি যদি নগদ ইসলামিক অ্যাকাউন্ট খুলতে চান, তাহলে নগদ মোবাইল অ্যাপ এ একাউন্ট টাইপ ইসলামিক করে নিতে হবে।

এভাবে আপনি নগদ ইসলামিক একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।

নগদ একাউন্ট চেক করার নিয়ম ২০২২

দুইটি পদ্ধতিতে নগদ একাউন্ট চেক করা যায়। একটি হলো নগদ ইউএসএসডি কোডের মাধ্যমে এবং অপরটি নগদ এর মোবাইল অ্যাপ দিয়ে।

এখন ইউএসএসডি কোডের মাধ্যমে নগদ একাউন্ট চেক করতে হলে আপনার মোবাইলে ডায়াল বিভাগে যাবেন।  তারপর*১৬৭# টাইপ করবেন। এই কোডটি হল নগদ একাউন্ট দেখার কোড। এখন আপনার প্রয়োজনীয় অপশনটি বেছে নিন।

এখন মোবাইল অ্যাপ দিয়ে নগদ একাউন্ট চেক করতে হলে আপনার ফোন নাম্বার।

এবংপিন কোড দিয়ে প্রবেশ করলেই যত তথ্য আছে সব পেয়ে যাবেন ইনশাল্লাহ। আশা করি নগদ একাউন্ট ব্যালেন্স দেখার নিয়ম জানতে পেরেছেন।

নগদ একাউন্টের সুবিধা ২০২২

আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী যেকোনো সময় ক্যাশ ইন করতে পারবেন। একাউন্টে যত খুশি তত টাকা জমা করতে পারবেন।

নগদ এর ক্যাশ আউট চার্জ খুবই কম। এই চার্জ হল ৯.৯৯ টাকা প্রতি রেইটে।

তাই আপনি ক্যাশ আউট করলে আপনার টাকার কম খরচ হবে অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং সেবার চেয়ে।

নগদ এর অন্যতম একটি সুবিধা হল আপনি ফ্রিতে যেকোনো মোবাইলে সেন্ড মানি করতে পারবেন।

এর জন্য আপনার কাছ থেকে কোন চার্জ কাটা হবে না।

পাশাপাশি যেকোনো অপারেটরের যেকোনো সিম নাম্বারে আপনি ফ্রিতে মোবাইলে টাকা রিচার্জ করতে পারবেন।

নগদে টাকা জমা রাখলে আপনি লাভ পাবেন। একজন মুসলিম হিসেবে আমাদের তা প্রত্যাখ্যান করা উচিত।

বরং ইসলামিক একাউন্ট তৈরি করে টাকা জমা রাখুন।

বিদ্যুৎ, ইন্টারনেট এবং পানি বিল সহ অন্যান্য অনলাইন পেমেন্টগুলো ফ্রিতে নগদের মাধ্যমে পে করতে পারবেন।

পাশাপাশি ফ্রিতে অ্যাড মানি করতে পারবেন। আপনি যদি মনে করেন ব্যাংকে টাকা রাখলে  সুদ হবে, তাহলে আপনি ওই টাকা নগদে সম্পুর্ন ফ্রীতে  আনতে পারবেন।

পাশাপাশি আপনার একাউন্টে কার্ড থেকে টাকা আনতে পারবেন চার্জ ব্যতীত।

আরো পড়ুনঃ বাটন মোবাইলে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

নগদ অফার ২০২৩

 শেয়ার টিপে এয়ার টিকেট নগদ পেমেন্ট করলে সাত পার্সেন্ট ছাড় পাবেন।

পাশাপাশি আপনি যদি রিসোর্ট এবংহোটেল বুকিং করেন, তাহলে ছিয়াত্রোর শতাংশ ছাড় পাবেন।

নোভায়ার-এ দশ শতাংশ ছাড় পাবেন। ইউনাইটেড হাসপাতাল-এ দুই হাজার টাকা ক্যাশ ফিরে পাবেন। আকাশ ডিটিএইচ-এ তাৎক্ষণিক ত্রিশ টাকা ফিরে পাবেন।

র‍্যাংগস ইলেট্রনিক্স-এ অথবা অনলাইনে কেনাকাটা করলি দেড় হাজার টাকা ডিসকাউন্ট পাবেন।

ওষুধ সেবাতে পাঁচ শতাংশ ছাড় পাবেন। যেকোনো সিমে অপারেটরে ফ্রিতে রিচার্জ করতে পারবেন।

পাশাপাশি দেশের বিখ্যাত অনলাইন সবগুলোতেই নগদ এর মাধ্যমে কেনাকাটা করলে বিভিন্ন ডিসকাউন্ট পাওয়া যায়।

নগদ একাউন্টের ক্যাশ আউট চার্জ

বাংলাদেশে কিছু মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রতিষ্ঠান আছে যেগুলো ক্যাশআউট করার সময় অনেক চার্জ নিয়ে থাকে। 

কিন্তু আপনি যদি নগদের দিকে লক্ষ্য করুন, তাহলে দেখবেন তার খুবই কম চার্জ নিয়ে থাকে।

প্রতি হাজার টাকায় নগদ আপনার কাছ থেকে ৯.৯৯ টাকা চার্জ কেটে রাখবে।

তবে এটা মোবাইল অ্যাপ দিয়ে ক্যাশ আউট করলে।

তবে অ্যাপ ব্যবহার না করে ইউএসএসডি কোডের মাধ্যমে ক্যাশ আউট করলে ১৪.৯৫ টাকা চার্জ কাটবে।

নগদ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

ঘরে বসেই নগদ একাউন্ট বন্ধ করা যায় না।  এর জন্য কি নিকটস্থ কোনো অফিসে যেতে হবে। সাথে এনআইডি কার্ড নিয়ে যাবে। 

তবে আপনার একাউন্টে যদি টাকা থাকে, তাহলো জায়গায় ট্রান্সফার করুন অথবা  ক্যাশ আউট করে নিন।

তারপর নগদ এজেন্ট এর কাছে গিয়ে বলবেন যে আপনার অ্যাকাউন্ট ডিলিট করার জন্য। তারপর তারা আপনার অ্যাকাউন্টটি বন্ধ করে দিবে।

নগদ হেল্পলাইন নাম্বার

প্রত্যেকটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর হেল্পলাইন নাম্বার আছে। ঠিক তদ্রূপ ভাবে নগদ তার গ্রাহকদের সুবিধার জন্য হেল্পলাইন প্রদান করেছে।

এই নগদ এর কাস্টমার কেয়ার নাম্বার হলো ১৬১৬৭।

আপনি যদি এই নাম্বারে যোগাযোগ করতে ব্যর্থ হন, তাহলে ০৯৬০৯৬১৬১৬৭ এই নাম্বারে সাহায্য পাবেন। 

তবে আশা করি দুটি নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারবেন।

নগদ একাউন্টের পিন ভুলে গেলে করণীয় কি

একজন মানুষ হিসেবে আমরা যেকোন জিনিস ভুলে যাব এটাই স্বাভাবিক।

আর এক্ষেত্রে যদি আমরা নগদ এর পিন নাম্বার ভুলে যাই, তাহলে চিন্তার কোন কারণ নেই।

কারণ আমরা এটা পুনরায় সেটাপ করতে পারব। এর জন্য আপনাকে কিছু পদক্ষেপ  অনুসরণ করতে হবে।  এগুলো নিচে দেয়া হলঃ

  1. প্রথমত আপনারা নগদ কাস্টমার কেয়ারের সাথে যোগাযোগ করবেন। আর আমি ইতিপূর্বেই কাস্টমার কেয়ারের নাম্বার দিয়েছি। 
  2. তারপর আপনার সমস্যা আর তাদের সাথে শেয়ার করবেন।
  3. তবে একটি জিনিস মাথায় রাখতে হবে যেই নাম্বারে একাউন্ট খুলেছেন ওই মোবাইল নাম্বারটা আপনাকে স্মরণ রাখতে হবে। 
  4. তারপর ভুলে যাওয়া পিন পুনরায় সেটআপ করার জন্য অনুরোধ পাঠাতে হবে।
  5. আপনার নামে নগদ একাউন্ট খোলা হয়েছে কিনা এরজন্য সত্যতা যাচাই করা হবে।
  6. তাই কাস্টমার কেয়ার এর এজেন্ট আপনার কাছ থেকে কিছু তথ্য চাইবে। 
  7. এগুলো হলো বাবা-মা, ভোটার আইডি কার্ডএবং আপনার জন্ম তারিখ। 
  8. তবে একটি জিনিস মনে রাখবেন আপনি যদি তথ্য দিতে ভুল করেন, তাহলে কোনো সাহায্য পাবেন না। 
  9. সর্বশেষ কত টাকা লেনদেন করেছেন তা এজেন্টকে জানাবেন। 
  10. আর যদি আপনার সব তথ্য সঠিক  হয়, তাহলেই একাউন্টি ভেরিফাই হবে এবং নগদ থেকে আপনার মোবাইলে একটি বার্তা পাঠানো হবে। ওই বার্তায় আপনি একটি কোড পাবেন। নগদ অ্যাপে কোডটি ব্যবহার করে পুনরায় আপনার ভুলে যাওয়া পিন সেটআপ করতে পারবেন ইনশাআল্লাহ। 

নগদ ব্যবহারকারীদের জন্য নিরাপত্তা কিছু বিষয়

পৃথিবী যতই উন্নতি হোক না কেন পাশাপাশি অসৎ লোকের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আর আপনি যদি একটু সতর্ক না হন, তাহলে আপনি তাদের খপ্পরে পড়ে সর্ব শান্ত হতে পারেন।

অনেক সময় শুনি কারো অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা হ্যাক হয়ে গেছে।

এর অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে আমরা যেই সেবাটি ব্যবহার করি, এর নিরাপত্তা বিষয়গুলো জানি না।

তাই আজ আমি আপনাদের বলব নগদ ব্যবহারকারীদের জন্য নিরাপত্তা কিছু বিষয় অবহিত করেছে। এগুলো নিচে দেওয়া হলঃ

  1. নগদ কোম্পানি কখনো পিন নাম্বার অথবা পাসওয়ার্ড তাদের দেওয়ার জন্য বলবে না।
  2. তবে যদি কেউ নগদ এর পরিচয় পিন নাম্বার অথবা পাসোয়ার্ড আপনার নিকট হতে জানতে চায়, তাহলে ধরে নিবেন সে অসৎ ব্যক্তি।
  3. আমি ইতিপূর্বেই নগদ এর হেল্পলাইন নাম্বার গুলো দিয়েছি। এই নাম্বারগুলোর মাধ্যমেই নগদ আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।
  4. আর যদি অন্য কোন নাম্বারে নগদের পরিচয় দিয়ে আপনার সাথে কথা বলতে আসে। তখন ধরে নিবেন সেই অসৎ ব্যক্তি। 
  5. তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে অসৎ লোক গুলো আপনাকে বলবে যে আমি নগদ থেকে বলছি আপনি আমাদের কিছু টাকা দিলে আমরা আপনাকে এক মাসের ক্যাশ আউট ফ্রি তে প্রদান করিব।
  6. এসব কথায় ভুলেও বিশ্বাস করবেন না। অন্যথা প্রতারিত হবেন।
  7. এখন আমি আরেকটি কমন বিষয় বলবো সেটি হল আপনাকে ফোন দিয়ে বলবে যে আপনি নগদ থেকে লটারি পেয়েছেন।
  8. ভাই তা ভুলেও তা বিশ্বাস করবেন না।
  9. কারণ নগদ থেকে যদি আপনাকে টাকা প্রদান করাই হয়, তাহলে তা আপনার অ্যাকাউন্টেই আসবে।
  10. তাই এ বিষয়টা মাথায় রাখবেন। 
  11. সর্বোপরি এই বিষয়গুলো মাথা রেখে কাজ করলে ইনশাল্লাহ কখনো প্রতারিত হবেন না। 

নগদ একাউন্ট ব্যবহার করার শর্তাবলী জেনে নেই

 নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি
নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি

প্রত্যেকটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রতিষ্ঠান কিছু শর্তাবলী আছে।

ঠিক তদ্রুপ ভাবে নগদ একাউন্ট খোলার পূর্বেই আপনি এর শর্তাবলী অবশ্যই জেনে নিবেন।

অন্যথায় আপনার অ্যাকাউন্ট খুলতে বিভিন্ন সমস্যার  মুখোমুখি হতে হবে। 

  1. একজন নগদ ব্যবহারকারীকেই অবশ্যই নগদ এর নীতিমালা মানতে হবে।
  2. কারণ নগদ এর কার্যক্রম আইন ও ডাক বিভাগের ধারা অনুযায়ী পরিচালিত হয়।
  3. অ্যাকাউন্ট খোলার সময় ভুল নাম্বার দিলে এবং ব্যবহারকারী যদি কোন আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তাহলে নগদ কে দোষারোপ করতে পারবে না। 
  4. লেনদেন করার সময় নগদ যে সকল চার্জ প্রদান করিবে তা সকল ব্যবহারকারীকে দিতে হবে। 
  5. একজন ব্যক্তি টাকা আদান প্রদানের সময় নির্দিষ্ট পরিমাণ একটি ব্যালেন্স একাউন্টে থাকতে হয়।
  6. আর তা না থাকলে সে আদান-প্রদান করতে পারবে না। আর এর জন্য নগদ কে দায়ী করতে পারবে না। 
  7. টাকা বিনিময়ের সময় অবশ্যই আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে যেই নাম্বারে আপনি টাকা পাঠাতে যাচ্ছেন।  অন্যথা ভুল হলে এর জন্য নগদ দায়ী নয়। 
  8. বাংলাদেশের ডাক বিভাগের একটি আইন অনুযায়ী ব্যবহারকারী নগদ সম্পর্কিত কোন বিষয়ে জানতে চাইলে অবশ্যই নগদ তা প্রদান করিবে। 
  9. একজন নগদ ব্যবহারকারীর টাকা আদান প্রদানের তথ্য সহ যাবতীয় সবকিছু নগদ গোপন রাখবে। তবে প্রয়োজনের প্রেক্ষিতে কোনো আইনি জটিলতা দেখা দিলে অবশ্যই নগদ তা প্রকাশ করতে বাধ্য থাকিবে। 
  10. নগদ ব্যবহারকারী পিন নাম্বার অথবা পাসওয়ার্ড কারো সাথে শেয়ার করবে না। আর যদি এর গোপনীয়তা নষ্ট হয় অথবা ব্যবহারকারী ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাহলেই নগদ কে দায়ী করতে পারবে না। 
  11. যদি কোন কারণে আপনার ফোন নাম্বার হারিয়ে যায় তাহলে অবশ্যই আপনি নগদ কাস্টমার কেয়ারে কল করি আপনার অ্যাকাউন্টটি বন্ধ করবেন অন্যথায় আপনি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারেন। এর জন্য কখনো  নগদ দায়ী থাকবে না।

আশা করি নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি বা নগদ একাউন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। এবং আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!