মাইগ্রেন এর লক্ষণ ও প্রতিকার।

আজ আমি মাইগ্রেন এর লক্ষণ ও প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব। আমাদের আশেপাশেই মাইগ্রেনের ব্যথায় ভুগে এমন সংখ্যা খুবই কম।

এই রোগটি গুটি কয়েক মানুষের হয়ে থাকে।  বিশেষত এই রোগের প্রধান কারণ কি তা এখনও চিকিৎসাবিজ্ঞানে আবিষ্কৃত হয়নি।

তবে ধারণা করা হয় জেনেটিক প্রবলেমের কারণে এই রোগটির জন্ম হয়। আসুন প্রথমে জেনে নেই মাইগ্রেন কি? মাইগ্রেন মূলত এক প্রকার মাথা ব্যাথা। 

এই রোগটির কারণে রোগীর মাথার নিচে প্রচন্ড ব্যথা করে। পাশাপাশি রোগীর রক্তচাপ বৃদ্ধি পায়। বিশেষ করে আমার বন্ধু শাহরিয়ার সে মাইগ্রেন ব্যথা প্রচণ্ড ভুগতেছে।

সে বারবার বলছে রে ভাই আমার মাথা প্রচন্ড ব্যথা করে। এমনকি যেদিন থাকে সেদিন তো কোন কাজ করতেই পারে না।

তাই আমাদের খুবই সতর্কতার সাথে এই রোগটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। যদিও চিকিৎসা বিজ্ঞানের কোন প্রতিকার বের হয়নি।

মূলত আমার বন্ধুর কথা বিবেচনা করে এবং যারা এই রোগে ভুগছেন তাদের কথা মাথায় রেখে আজকের পোস্টটি লেখা।

আমেরিকার এক গবেষণায় দেখা গেছে তাদের জনসংখ্যার মধ্যে চল্লিশ মিলিয়ন লোক এ রোগে আক্রান্ত।

ফলে যে ব্যক্তি এই রোগে আক্রান্ত তার শরীর থেকে রাসায়নিক নিঃসরণ এবং বমি সহ জ্বলন হয়। বিশেষ করে আমার বন্ধু শাহরিয়ারের এই রোগটি বংশগতভাবে। তার বাবার ও ছিল। 

মাইগ্রেনের লক্ষণ গুলো কি কি জেনে নিন

মাঝে মাঝে আমাদের দেহে প্রচন্ড ব্যাথা হয়। আর আমরা অনেক সময় ভেবে থাকি তা হয়তো ক্লান্তি থেকে আসছে।

তবে মনে রাখবেন আপনাদের দেহ যদি অর্ধেক ব্যথা করে তাহলে অবশ্যই এটা মাইগ্রেনের লক্ষণ হিসেবে বিবেচনা করা হয় যা চিকিৎসাবিজ্ঞানে প্রমাণিত হয়েছে।

নিউরোলজিক্যাল সমস্যা হিসেবেও মাইগ্রেনকে বলা হয়। আর যখন একজন রোগীর ব্যথা শুরু হয় তা ২ থেকে ৩ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।

এ রোগের আরেকটি লক্ষণ হলো মাইগ্রেনে আক্রান্ত ব্যক্তি রাতে ঘুমাবে না অর্থাৎ তার কম ঘুম হবে।

পাশাপাশি লাইটের আলোতে তার সমস্যা হবে। এবং যে কোন শব্দ যদি জোড়ে হয়,তাহলে তার মাথায় এর প্রভাব পড়বে।

আরো পড়ুনঃ জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায়

মাইগ্রেনের কারণ গুলো জেনে নিন (মাইগ্রেন এর লক্ষণ)

আজ আমি আপনাদের সামনেই মাইগ্রেনের কিছু কারণ তুলে ধরব।

  • মাঝে মাঝে আপনার মাথা ব্যাথা করবে।
  • খাবার পরিমাণ অনেক কমে গেলে।
  •  পরিমাণমতো না ঘুমালে।
  • বমি হলে তা মাইগ্রেন এর অন্যতম কারণ।
  • তবে একটি জিনিস মাথায় রাখবেন যারা ইতিপূর্বে রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত তাদের মাইগ্রেনের অবস্থা পূর্ব থেকে অনেকটা বেড়ে যাবে। 
  • এলার্জি যুক্ত খাবার খেলে আপনার মাইগ্রেন হতে পারে। তাই যথা সম্ভব এই খাবারগুলো পরিহার করুন। 
  • লবণযুক্ত খাবার আপনার এই রোগের কারণ হতে পারে।
  • অতিরিক্ত প্রেসারের থাকবেন না। যদি থাকেন, তাহলে এই রোগ আপনাকে গ্রাস করবে।
  • কখনো মদ খাবেন না। বিশেষ করে ওয়াইন জাতীয় পানীয় থেকে বিরত থাকুন।

মাইগ্রেন ব্যথা শুরু হলে আপনার করনীয় কি তা জানুন (মাইগ্রেন এর লক্ষণ)

এই ব্যথা যদি শুরু হয় তাহলে কি কি করতে হবে তা নিচে দেয়া হলঃ 

  1. কোলাহল থেকে আলাদা হয়ে নিস্তব্ধ পরিবেশে চলে যান।
  2. বিশেষ করে আলো ও যেকোন প্রকার শব্দ থেকে চলে যান।
  3. মাথার যে অংশে আপনার ব্যাথা হবে, সেখানে ম্যাসাজ করবেন। 
  4. তবে মাঝে মাঝে প্রচন্ড ব্যাথা হলে ঔষধ খেতে পারেন। তবে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী প্যারাসিটামল খেতে পারেন।

মাইগ্রেন এর প্রতিকার সম্পর্কে জানুন (মাইগ্রেন এর লক্ষণ)

মাইগ্রেন থেকে বাঁচতে আপনার কোন কোন কাজগুলো করা উচিত তা অবশ্যই জানান জরুরী।

তাই আমি নিচে কিছু নিয়ম বলে দিব তা অনুসরণ করলে আশা করি আপনারা এই রোগ থেকে বাঁচতে পারবেন। 

  • প্রতিনিয়ত ঠিক সময়ে খাবার খেতে হবে।
  • আপনি যে বাসায় থাকবেন সেই বাসার আনাচে-কানাচে পরিষ্কার করে রাখবেন। কেননা নোংরা রাখলে মাইগ্রেন হওয়ার আশঙ্কা অনেকটা বেড়ে যায়।
  • পরিমাণ মতো খাবার খাবেন।
  • মনে রাখবেন যে খাবারগুলো খেলে আপনার মাইগ্রেন হতে পারে। ওই খাবারগুলো খাওয়া হতে বিরত থাকুন।
  • আর আপনি যদি একজন বিবাহিত মহিলা হন, তাহলে জন্মনিয়ন্ত্রণ যেই পিল আছে ওইটা খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। 
  • ধুলাবালি আছে এমন জায়গায় কখনো যাবেন না। বিশেষ করে শীতের সময় এক স্থান থেকে অন্য স্থানে গেলে অবশ্যই মাস্ক পড়ে যাবেন। 
বিট লবণ এর মাধ্যমে মাইগ্রেনের ব্যথা দূর করুন

বিট লবণ মাইগ্রেনের ব্যথা দূর করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। সঠিকভাবে ব্যবহার করার মাধ্যমেই আপনি উপকৃত হতে পারেন। 

আমি নিচে এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করছি। প্রথমেই একটি লেবুর অর্ধেক রস চেপে তার সাথে এক চামচ বিট লবণ মিশ্রিত করুন।

এভাবে তাকে তে পারেন অথবা এক গ্লাস লেবুর রস ও পানির সাথে বিট লবণ মিশিয়ে আপনি খেতে পারবেন।

তবে কি জিনিস মনে রাখবেন আপনাদের মধ্যে কারো যদি উচ্চরক্তচাপ থাকে। ফলে তার লবণ খাওয়া যদি মানা থাকে।

তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী এই পানীয়টি গ্রহণ করবেন। অন্যথায় খারাপ হতে পারে। আশাকরি মাইগ্রেনের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে জেনেছেন এবং আমাদের ফেসবুক পেইজের সাথে যুক্ত হোন।

Source: https://www.prothomalo.com

Leave a Reply

Your email address will not be published.