How to Remove Dark Spots on Face Overnight Home Remedies

How to Remove Dark Spots on Face Overnight Home Remedies: To know it read the full article। হাজার বছর ধরে মধু আমাদের কাছে পরিচিত। বিশ্বব্যাপী মধু ব্যবহার করা হয়।

আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞদের মতে, একটি ফুলের মধুর চেয়ে বিভিন্ন  ফুলের সমন্বয়ে মধু বেশি উপকারী। কেননা, তাতে অনেক ফুলের উপাদান থাকে।

এবং এর মধ্যে বিভিন্ন পুষ্টি রয়েছে। তাই, মুখের কালো দাগ দূর করতে খুবই কার্যকর ভূমিকা পালন করে। 

মুখের কালো দাগ চিরতরে দূর করতে যে সকল মধু উপকারী

ত্বক বিশেষজ্ঞদের মতে, সব ধরনের মধুই মুখের কালো দাগ দূর করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। যে মধুর ঘনত্ব বেশি, সেই মধু তত উপকারী।

কেননা ওই ধরনের মধুতে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান আছে।  এই উপাদান টির নাম হল এন্টিঅক্সিডেন্ট। গাঢ় মধুতে এন্টিঅক্সিডেন্ট এর পরিমাণ বেশি থাকে।

তাই, অপরিশোধিত মধু ব্যবহার করা উচিত। কারণ এগুলো হলো প্রাকৃতিক মধু।  সবাই প্রাকৃতিক মধু গ্রহণ করার চেষ্টা করবেন। এই সকল মধু ত্বকের জন্য খুবই উপকারী।

তিনটি আঞ্চলিক মধু পাওয়ার উৎস আছে। এগুলো হলো ইউনিক মেনোকা ফ্যাক্টর হানি এসোসিয়েশন। ন্যাশনাল হানিবার্ড এবং লোকাল হানি ফাইন্ডার। আঞ্চলিক মধু পাওয়ার জন্য এই সংস্থাগুলোতে যেতে পারেন।

মুখের কালো দাগ চিরতরে দূর করতে মধুর ব্যবহার 

মধুর মধ্যে তিন প্রকার উপাদান আছে। এগুলো হলো এন্টি-অক্সিডেন্ট,এন্টিসেপটিক এবং ব্যাকটেরিয়া বিরোধী উপাদান।

যা আপনার মুখের ব্রণ এবং কালো দাগ দূর করে। এবং ত্বককে আদ্র রাখতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। এখন আমি কিছু টিপস বলবো।

হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ভিজিয়ে নিন। তারপর আধ চা-চামচ মধু আপনার মুখে লাগান। ২৫ থেকে ৩০ সেকেন্ড অপেক্ষা করুন। তারপর মুখমন্ডল ধৌত করুন। এভাবে প্রতিদিন যত্ন নিবেন।

রাতে ঘুমানোর আগে মুখ হালকাভাবে ধৌত করুন। এবং মধু ব্যবহার করুন। সকালে ঘুম থেকে উঠে পানি দিয়ে মুখ ধৌত করুন। 

মধুর সাথে দারুচিনি গুঁড়া মিশ্রিত করুন। এগুলোর সমন্বয়ে পেস্ট তৈরি করুন। আপনার মুখের ত্বকে ব্যবহার করুন। এক ঘন্টার পর মুখ ধৌত করুন।

তিন চামচ মধুর সাথে বেকিং সোডা মিশ্রিত করুন। এগুলো দিয়ে স্ক্রাবার তৈরি করুন। মুখের ত্বকে ব্যবহার করুন। 

দুধ ও মধু একসাথে মিশ্রিত করুন। মুখের কালো দাগের উপর ব্যবহার করুন। ১২ মিনিট অপেক্ষা করুন। পানি দিয়ে মুখ ধৌত করুন। 

আপেল ও মধু দিয়ে মুখের কালো দাগ দূর করা যায়। পাশাপাশি মুখে ব্রণ থাকলে দূর হয়ে যাবে।  এই ফেসপ্যাকটি তৈরি করার পদ্ধতি বলছি। 

প্রথমে আপেলের পেস্ট তৈরি করুন। ৫-৭ ফোঁটা মধু মিশাতে হবে। এভাবে ফেইস প্যাকটি তৈরি করবেন। তা ব্যবহার করার ৫ থেকে ৭ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধৌত করুন। সপ্তাহে ৬-৭ বার এই ফেইস প্যাকটি ব্যবহার করুন। 

পরিশেষে, সতর্কমূলক একটি কথা বলতে চাই। এলার্জির সমস্যা থাকলে মধু ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকবেন।  যারা ব্যাবহার করবেন, ত্বক ভালোভাবে পরিষ্কার করবেন।

অন্যথা, উল্টো ব্রণ হবে। আশা করি, আপনারা বুঝতে পেরেছেন।  কিভাবে মধুর মাধ্যমে মুখের কালো দাগ ঘরোয়াভাবে দূর করবেন। 

প্রাকৃতিক এক্সফলিয়েটর হিসেবে মধুর ভূমিকা 

প্রাকৃতিক এক্সফলিয়েটর হিসেবে মধু সহায়ক ভূমিকা পালন করে। মুখের ত্বক ভালোভাবে পরিষ্কার করুন। হালকাভাবে মুখে মধু ব্যবহার করুন। ৮ থেকে ১২ মিনিট অপেক্ষা করুন।

হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধৌত করুন। রুমাল দিয়ে মুখের পানি মুছে নিন। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার ব্যবহার করুন। মুখের ত্বক পরিষ্কার হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ। 

লেবুর রস দিয়ে মুখের কালো দাগ দূর করার ঘরোয়া উপায় 

লেবুর রস মুখের কালো দাগ চিরতরে দূর করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। এই জন্য লেবুর রসের সাথে বিভিন্ন উপাদান মিশাতে হবে। এবং একটি ফেসপ্যাক তৈরি করতে হবে।

মাঝে মাঝে ভুলবশত ব্রণে নখ লাগিয়ে ফেলে। বিশেষ করে আমি নিজেও ব্রণে লাগাই। ফলে, আমাদের মুখের দাগ দীর্ঘদিন থেকে যায়। তাই, লেবুর রস দিয়ে এই দাগ দূর করতে পারবেন ইনশাল্লাহ।

কারণ লেবুর রসে একটি এসিড আছে।  এর নাম হলো এসকরবিক এসিড। এটা ত্বকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভূমিকা পালন করে। কোন কোন উপাদান এর সাথে লেবুর রস মিশাবেন। তা নিচে বর্ণনা করা হলো। 

  • লেবুর রসের সাথে গোলাপ জল মিশ্রিত করুন। অথবা ভিটামিন-ই সাথে দিতে পারেন। এগুলোর সমন্বয়ে ফেসপ্যাকটি তৈরি করবেন। নখের দাগ যুক্ত স্থানে ব্যবহার করুন। ৫-৬  মিনিট অপেক্ষা করুন। এভাবে ব্যবহার করলে ভাল ফলাফল পাবেন। 
  • মুখের কালো দাগ দূর করার অন্যতম একটি মাধ্যম হলো লেবুর রস এবং কমলার রস। এই দুটি ফল মিশ্রিত করে ফেসপ্যাক তৈরি করুন। মুখে ব্যবহার করুন। ২৫  মিনিট পর মুখ ধৌত করুন। মুখে যে কোন প্রকার দাগ থাকলে তা দূর হয়ে যাবে। এবং ত্বকের লাবণ্য বেড়ে উঠবে।
  • লেবুর রস ও দুধ দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করুন। তা মুখে ব্যবহার করুন। ১৫-২০ মিনিটের মধ্যে পানি দিয়ে ধৌত করুন। এই পদ্ধতিটি মুখের দাগ দূর করার পাশাপাশি ত্বকের আদ্রতা বৃদ্ধি করে। 

পরিশেষে, একটি জিনিস মাথায় রাখতে হবে।  তা হল সরাসরি লেবুর রস মুখে ব্যবহার করবেন না। কেননা তা ব্যবহার করলে আপনার মুখের বারোটা বাজতে পারে। 

অর্থাৎ প্রচণ্ড ক্ষতি হবে।  আমরা জানি, লেবুর রস এক প্রকার এসিড আছে।  তাই ফেসপ্যাক এর মাধ্যমে আপনি ব্যবহার করুন।  আশা করি,আপনারা বুঝতে পেরেছেন।

এলোভেরা দিয়ে মুখের কালো দাগ দূর করার ঘরোয়া উপায় 

মুখের কালো দাগ দূর করার অন্যতম মাধ্যম এলোভেরা। আমি এর পদ্ধতি বলছি। প্রথমে, অ্যালোভেরার পাতা কাটতে হবে। এর ভিতর থেকে জেল বের করতে হবে।

এখন জেলটা পরিষ্কার করে নিন। পরিশেষে,আপনার মুখে ব্যবহার করুন। মুখের কালো দাগ নিমিষেই দূর করুন। এলোভেরা জেল দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করা যায়।

এর জন্য কিছু উপাদান দরকার হবে। জেলের সাথে চিনি ও লেবুর রস মিশ্রত করুন। এভাবেই ফেসপ্যাক তৈরি করা হয়। এবংত্বকে ব্যবহার করতে পারেন।

একটা জিনিস মাথায় রাখবেন। অ্যালোভেরা জেল হাত দিয়ে মুখে ব্যবহার করবেন না। নরম কাপড় দিয়ে ব্যবহার করবেন। অন্যথা, ত্বকে সমস্যা দেখা দিতে পারে।  

শসা দিয়ে মুখের কালো দাগ দূর করুন

শসার সাথে আমরা সবাই পরিচিত। অনেকেই শসা দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করে থাকি। এর চমৎকার ফলাফল পেয়ে থাকি। আপনি কি জানেন?। শসা দিয়ে ও মুখের কালো দাগ দূর করতে পারবেন।

তাই,আমি একটি উপায় বলবো। কিভাবে শসা দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করবেন। প্রথমে, শসা থেকে রস বের করতে হবে। ঘুমানোর পূর্বে  ঐ রস মুখে ব্যবহার করুন। সারা রাত রাখবেন। সকালে মুখ ধৌত করুন।

ইনশাআল্লাহ আপনি চমৎকার ফলাফল পাবেন। এখন আমি দ্বিতীয় উপায় বলবো। শসার রসটাকে বরফ আকারে তৈরি করুন। এর জন্য আপনাকে ফ্রিজে রাখতে হবে।

এই বরফ টা মুখে ঘষে ব্যবহার করতে পারবেন। এভাবে প্রতিনিয়ত করবেন।  এক থেকে দুই সপ্তাহ চালু রাখবেন। ইনশাল্লাহ কালো দাগ দূর হয়ে যাবে। 

মুখের কালো দাগ দূর করার অন্যতম মাধ্যম টমেটো

টমেটোর রস দিয়েও মুখের কালো দাগ দূর করা যায়। টমেটোর রস বের করুন।  মুখে ব্যবহার করুন। পনের থেকে বিশ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন।

এটা হচ্ছে প্রথম পদ্ধতি। এখন আমি দ্বিতীয় মাধ্যম বলবো। টমেটো থেঁতো করে পরিমাণমতো মধু মিশ্রিত করুন। এবং মুখে ব্যবহার করুন। কিছুক্ষণ পর পানি দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন।

আমরা অনেকেই জানিনা টমেটোর রস দিয়ে কিভাবে ফেসপ্যাক তৈরি করব। এর জন্য দুটি উপাদান লাগবে।  এগুলো হলো টমেটোর রস ও শসার রস। এগুলোর সংমিশ্রণে সুন্দর একটি ফেসপ্যাক তৈরি করা যায়।

মুখে ব্যবহারের পনের মিনিট পর ধৌত করুন। সপ্তাহে চার বার এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করুন। টমেটোর রস দিয়ে স্ক্রাব তৈরি করা যায়। এর জন্য তিনটি উপাদান লাগবে। 

এগুলো হলো রস, বাটা মসুরের ডাল এবং মধু। এগুলোর সমন্বয়ে স্ক্রাবটি তৈরি করতে পারবেন। সপ্তাহে তিন থেকে চার বার ব্যবহার করুন। 

পেঁপের মাধ্যমে মুখের কালো দাগ দূর করুন 

মুখের কালো দাগ দূর করার অন্যতম উপায় হলো পেঁপে। পেঁপের মধ্যে একটি বিশেষ উপাদান আছে।  এর নাম হলো এনজাইম।

যা মুখের কালো দাগ দূর করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। প্রথমে, পেঁপেকে পেস্টে রূপান্তর করতে হবে। এখন পেস্ট ব্যবহার করে জুস বানান। রুমালের মাধ্যমে মুখের কালো দাগে ব্যবহার করুন।

কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে। তারপর হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এভাবে পেঁপের মাধ্যমে মুখের কালো দাগ দূর করতে পারবেন। 

আলু দিয়ে মুখের কালো দাগ দূর করার ঘরোয়া টিপস

প্রথমে, আলো থেকে রস বের করতে হবে। রসের সাথে মধু মিশ্রিত করুন।  তারপর মুখে ব্যবহার করুন।  কিছুক্ষণ পর পানি দিয়ে ধৌত  ধুয়ে ফেলুন।

দুই চামচ আলুর রসের সাথে দুই অথবা তিন চামচ মধু মিশ্রিত করুন। তা মুখের ত্বকে ব্যবহার করুন।  বিশ থেকে পচিশ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। 

তারপর,পানি দিয়ে মুখ ধৌত করুন। পাশাপাশি লেবুর রসের সাথে টমেটোর রস ব্যবহার করতে পারেন। এভাবে আলু দিয়ে মুখের কালো দাগ দূর করা যায়।

কাঁচা হলুদ ব্যবহার করুন

কাঁচা হলুদে দুটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান আছে। এগুলো হলো অ্যান্টিসেপ্টিক এবংঅ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল। কালো দাগ দূর করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

প্রথমে, কাঁচা হলুদ বাটতে হবে। তার সাথে আঙ্গুর ফলের রস মিশ্রিত করুন। মুখে ব্যবহার করুন। বিশ মিনিট পর মুখ ধুয়ে ফেলুন। পাশাপাশি নিম পাতার রস ব্যবহার করতে পারেন।

কাঁচা হলুদ দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করা যায়। তা মুখে লাগানোর পর ফেসওয়াশ ব্যবহার করবেন না। তাহলে এর কার্যক্ষমতা অক্ষম হয়ে যাবে। 

বরফ দ্বারা কপালের দাগ দূর করুন 

আমাদের অনেকেরই কপালে দাগ হয়ে থাকে। তা বরফ দিয়ে সহজেই দূর করতে পারি। তার জন্য কপালে বরফ ঘষতে হবে।

অ্যালোভেরার জেলকে বরফ বানিয়েও ব্যবহার করতে পারেন। কেননা এর মধ্যে দুটি উপাদান আছে।  এগুলো হলো অ্যান্ট ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি ইনফ্লামেটরী।

এগুলো রোদে পোড়া দাগ দূর করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। I hope you have known How to Remove Dark Spots on Face Overnight Home Remedies.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!