চিম্বুক পাহাড় কোথায় অবস্থিত?

চিম্বুক পাহাড় কোথায় অবস্থিত? তা জানতে চাচ্ছেন। বাংলার দার্জিলিং নামে পরিচিত দেশের তৃতীয় বৃহত্তম পাহাড় হলো চিম্বুক পাহাড় যা বান্দরবানে অবস্থিত।

পাহাড়ি সৌন্দর্যের রাণী হিসেবে পরিচিত, এই পাহাড় দেশের গন্ডি পেরিয়ে আজ বাহিরেও পরিচিতি লাভ করেছে।

উঁচু পাহাড় মানেই চিম্বুক পাহাড়, এরকম ধারণা হতে চিম্বুক পাহাড়ের প্রতি সাধারণ মানুষের আর্কষণ জাগে। আর চিম্বুক পাহাড় দেখতে কী রকম?

আরো পড়ুনঃ পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত। 

এটা জানতে হলে যেতে হবে তিন পার্বত্য জেলার পর্যটনের প্রাণ কেন্দ্র বান্দরবান। এ পাহাড় হতে দৃশ্যমান সৌন্দর্যগুলোর মধ্যে  অন্যতম হলো সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয়ের দৃশ্য যা যেকোনো পর্যটককে মুগ্ধ করবে।

 এই ব্যতিক্রমধর্মী পর্যটন স্পষ্টটি জেলা শহর হতে ২৬ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এবং সমুদ্রপৃষ্ট হতে প্রায় ২৬০০ ফুট উচু।

চিম্বুক পাহাড়ের চূড়াতেই রয়েছে এর পর্যটন কেন্দ্র।এই পাহাড়ের চূড়া হতে পার্শ্ববর্তী জেলা কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের উপজেলা গুলো দেখা যায়।  

সমুদ্রপৃষ্ট হতে চিম্বুক পাহাড়ে যাওয়ার আকা-বাঁকা রাস্তা চমৎকার প্রাকৃতিক দৃশ্য প্রদর্শন করে এবং সর্পিল সাঙ্গু নদীর সৌন্দর্য মনকে প্রশান্ত করে।

পাহাড়ের সর্বোচ্চ চূড়ায় দাঁড়িয়ে প্রকৃতির নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে করতে হারিয়ে যেতে মন চায় এক অপার্থিব জগতের গভীরে।

বর্ষায় চিম্বুক পাহাড়ের সৌন্দর্য হলো এখান থেকে ও সাজেকের মতো মেঘের উড়াউড়ির দেখা মেলে।

চিম্বুক পাহাড় এ যাওয়ার পন্থাসমূহ( চিম্বুক পাহাড় কোথায় অবস্থিত)

চিম্বুক পাহাড় এ যেতে হলে বান্দরবানের আশেপাশের স্থান গুলোতে ভ্রমণ করতে চাইলে আপনাকে যাত্রা শুরু করতে হবে বান্দরবান শহর হতে।

ঢাকা থেকে বান্দরবনে বিভিন্ন মাধ্যমে আসা যায়। বান্দরবানের যাওয়ার জন্য বিভিন্ন বাস চলাচল করে।

যেমনঃ ইউনিক, সাউদিয়া, এস.আলমস,দেশ,শ্যামলী, হানিফ, সেন্ট মার্টিন পরিবহন সহ এসি/নন এসি সহ নানারকমের বাস।

রাত নয়টা ত্রিশ হতে এগারো টার বাসে ছয় থেকে আট ঘণ্টায় আসতে পারবেন বান্দরবান । বাসের মান অনুযায়ী ছয়শত থেকে বারোশত টাকার টিকেট পাবেন।

ট্রেনে আসতে চাইলে চট্টগ্রামের ট্রেনের টিকেট পেয়ে যাবেন ২৫০-৭০০ টাকার মধ্যে। সেক্ষেত্রে কমলাপুর স্টেশন হতে পেয়ে যাবেন বান্দরবানগামী বিভিন্ন ট্রেন।যেমনঃসোনার বাংলা,তূর্ণা, গোধূলি, প্রভাতী।

চট্টগ্রামে পৌছার পর আপনাকে যেতে হবে বাস বহদ্দারহাট /পূর্বানী বাস টার্মিনালে।সেক্ষেত্রে চট্টগ্রাম হতে বান্দরবান শহরের টিকেট খরচ জনপ্রতি ২০০-৩০০টাকা।

বান্দরবান হতে চিম্বুক পাহাড়ে পৌছতে হলে বান্দরবান স্টেশন-এ যাবেন। তারপর সেখানে পাবেন নানা রকমের গাড়ী। 

যেমনঃ চান্দের গাড়ী, জীপ, পাজেরো।এর মধ্যে যে কোনো গাড়ি দিয়ে আপনি পৌছাতে পারবেন চিম্বুক পাহাড়ের পথে।

চিম্বুক পাহাড় এ থাকার জায়গার ব্যবস্থাসমূহ জেনে নিন

চিম্বুক পাহাড় এর আশেপাশে রাত্রিযাপন করতে চাইলে জেলা প্রশাসক নিয়ন্ত্রিত হোটেল ও গেস্টহাওজ গুলোর মধ্যে রয়েছেঃ

১)হোটেল গ্রিনহীলঃ এর ঠিকানাঃ প্রধান সড়ক, বান্দরবান -৪৬০০। এবং যোগাযোগ করতে এই নাম্বারগুলো ব্যবহার করুনঃ +৮৮০১৮৫৬৬৯৯৯১০,+৮৮০১৮৫৬৬৯৯৯১১।

২) হোটেল পূরবীঃ

ঠিকানাঃভিআইপি. রোড, বান্দরবান সদর,বান্দরবান।
যোগাযোগ করতে এই নাম্বারগুলোতে কল করুন। তাদের নাম্বারগুলো হলো ০১৮২৩-৩৪৬৩৮৩, ০৩৬১-৬২৫৩১।
৩)হোটেল পাহাড়িকাঃ

প্রধান সড়ক, বান্দরবান এই হোটেলের অবস্থান। পাহাড়িকাতে কন্টাক্ট করতে হলে এই ফোন নাম্বারে কল করুন। ফোন নাম্বারটি হলো ০৩৬১-৬২১৫৫।

আশা করি চিম্বুক পাহাড় কোথায় অবস্থিত? জানতে পেরেছেন। এবং ফেসবুক পেইজে যুক্ত থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.