৬ মাস শিশুর খাদ্য তালিকা ২০২২

৬ মাস শিশুর খাদ্য তালিকা জানতে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন।

আপনার শিশুর যখন খাবারের প্রয়োজন হবে, তখন আপনাকে খাবার দিতে হবে। তবে একটি কথা মনে রাখবেন আপনার বাচ্চার বয়স অনুযায়ী খাবার পরিবেশন করবেন।

কারণ আপনার শিশুর বিকাশ এই খাবারের উপর নির্ভর করবে। আজকের এই পোষ্টে, আমি 6 মাস বয়সী শিশুর খাদ্য তালিকা এবং বাচ্চার দৈনন্দিন রুটিন নিয়ে আলোচনা করব।

অন্য পোষ্ট পড়ুনঃ আমলকির উপকারিতা ও অপকারিতা

৬ মাস শিশুর খাদ্য তালিকা ২০২২

৬ মাস শিশুর খাদ্য তালিকা নিচে দেখতে পাবেন। এখন আমি বলব কোন খাবারগুলি দিয়ে শুরু করবেন। পাশাপাশি শিশুর খাদ্য তালিকাও বর্ণনা করব।

ফলের পিউরি

আপনি প্রথম কঠিন খাবার হিসাবে ফলের পিউরি পরিবেশন করতে পারেন। এখন আমি ফলের পিউরির কিছু উদাহরণ তুলে ধরব। যেমন আপেল পিউরি, কলা পিউরি, পিচ পিউরি, নাশপাতি পিউরি।

যখন আপনি এই পিউরিগুলো তৈরি করবেন, তখন এগুলোকে অবশ্যই বাষ্প করবেন। পরিশেষে আপনাকে এই পিউরিগুলো ম্যাশ করতে হবে। ৬ মাস বয়সী শিশুর শক্ত খাবার শুরু করার জন্য আপেল এবং কলা সবচেয়ে নিরাপদ।

অন্য পোষ্ট পড়ুনঃ কাজু বাদামের ১৭ টি উপকারিতা

শাক সবজির পিউরি(৬ মাস শিশুর খাদ্য তালিকা)

আপনার বাচ্চাকে প্রথম শক্ত খাবার হিসেবে সবজির পিউরি দিতে পারেন। এগুলো হল আলু পিউরি, কুমড়া পিউরি, মিষ্টি আলুর পিউরি, গাজর পিউরি, মটরশুটি পিউরি।

আপনার বাচ্চাকে খাওয়ানোর পূর্বে এই সমস্ত পিউরিগুলিকে বাষ্প করে ম্যাশ করতে হবে। শীতকালে ৬ মাস বয়সী বাচ্চারা এই পিউরিগুলো খেতে পারবে।

শস্য দানা

আপনার বাচ্চকে শস্যদানা পরিবেশন করতে পারেন। এগুলো হল চাল, চালের সেরেলাক, গম, মুগ ডাল, সুজি। এই খাবারগুলো আপনার বাচ্চাকে বেড়ে উঠতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

কখন কঠিন খাবার শুরু করবেন?

যেসব শিশু জন্মের পর থেকে ফর্মুলা দুধ খেয়ে বড় হয়েছে। তাদের ক্ষেত্রে ডাক্তাররা পাঁচ মাস বয়সে কঠিন খাবার খাওয়ানোর পরামর্শ দেন।

কিন্তু যেসব শিশু জন্মের পর থেকে বুকের দুধ খেয়ে বড় হয়েছে। তাদেরকে ছয় মাস বয়সে শক্ত খাবার শুরু করার পরামর্শ দেন।

৬ মাস শিশুর আদর্শ উচ্চতা এবং ওজন

একটি ছয় মাস বয়সী ছেলের আদর্শ উচ্চতা 26.1-27.2 ইঞ্চি এবং ওজন 7.3-8.5 কেজি হওয়া উচিত।

পক্ষান্তরে, একটি ৬ মাসের শিশু কন্যার আদর্শ ওজন 6.7-7.9 কেজি এবং উচ্চতা 25.3-26.7 ইঞ্চি হওয়া উচিত।

৬ মাস শিশুর ঘুমের রুটিন

এখন আমি আপনাদের সাথে ছয় মাস শিশুর ঘুমের রুটিন নিয়ে আলোচনা করব। আপনার ৬ মাস বয়সী শিশু দিনে দৈনিক ২-৪ ঘন্টা ঘুমাতে পারে।

আর রাতে ১১-১২ ঘন্টা ঘুমাবে। মোট আপনার শিশু ১৪ -১৫ ঘন্টা ঘুমাবে। একটি ছয় মাস বয়সী বাচ্চার জন্য তাই যথেষ্ট।

অন্য পোষ্ট পড়ুনঃ প্রোটিন জাতীয় খাবার

দুধের পরিমাণ

প্রথমে বুকের দুধের পরিমাণ নিয়ে আলোচনা করব। প্রকৃতপক্ষে বুকের দুধ পরিমাপ করা খুব কঠিন।

যখন আপনার শিশু বুকের দুধ খেতে চাইবে, তখনি আপনাকে বুকের দুধ খাওয়াতে হবে।

অন্যথায়, দেওয়ার দরকার নেই। কিন্তু আমরা ফর্মুলা দুধ পরিমাপ করতে পারি।

প্রতিদিন আপনার বাচ্চাকে 4-8 oz ফর্মুলা দুধ খাওয়াতে পারেন । প্রতিদিন ৪-৬ বার বাচ্চাকে ফর্মুলা দুধ পরিবেশন করতে পারেন।

৬ মাস বয়সী শিশুর জন্য দৈনিক রুটিন

একটি ৬ মাস বয়সী শিশু সাধারণত ৭-৮ টায় জেগে উঠবে। যদি আপনার শিশু সময়মতো না জাগে, তাহলে তাকে ঘুমাতে দিন।

বরং আপনি তাকে রাতে তাড়াতাড়ি ঘুম পাড়াবেন যাতে সে সকালে ঘুম থেকে উঠতে পারে। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর শিশুকে বুকের দুধ বা ফর্মুলা দুধ পরিবেশন করুন।

বুকের দুধ খাওয়ানোর এক থেকে দুই ঘণ্টা পর শিশুকে সকালের নাস্তা পরিবেশন করুন। তবে যেসব মায়েরা তাদের শিশুকে শক্ত খাবার দিচ্ছেন, তারা ১ থেকে ২ টেবিল চামচ শক্ত খাবার পরিবেশন করতে পারেন।

কারণ বাচ্চারা বুকের দুধ খাওয়ার পর শক্ত খাবার খেলে হজম হতে একটু সময় লাগবে। তাই, আপনার শিশুকে ১ টেবিল চামচ কঠিন খাবার পরিবেশন করবেন।

সে যদি বেশি খেতে চায়, তাহলে আপনার শিশুকে আরও এক টেবিল চামচ শক্ত খাবার দিবেন। আপনি জানেন তার পেট খুব ছোট।

তাই আপনার শিশুর চাহিদা অনুযায়ী খাবার পরিবেশন করতে হবে। না হলে বদহজম হবে।

একটি কথা মনে রাখবেন আপনার বাচ্চাকে সকালে শক্ত খাবার খাওয়ানোর চেষ্টা করবেন যাতে সারাদিন বাচ্চার ওপর নজর রাখতে পারেন।ফলে খাবারের খারাপ প্রভাব আছে কি না তা বুঝতে পারবেন।

অন্য পোষ্ট পড়ুনঃ কাচা কলার উপকারিতা

শিশুর জন্য দুধ

দুই থেকে তিন ঘণ্টা গ্যাপ দেওয়ার পর বুকের দুধ বা ফর্মুলা দুধ খাওয়াবেন। দুধ সকালের নাস্তার পরে খাওয়াবেন। এভাবে রাত পর্যন্ত বুকের দুধ বা ফর্মুলা দুধ খাওয়াবেন।

এভাবে সাত মাস চলবে। ৭ মাস সম্পন্ন হওয়ার পরের মাস থেকে শিশুর খাদ্যতালিকায় দুপুরের খাবার যোগ করবেন। এখন সে দুবেলা খাবে।

ঘুমানোর সময়

আপনার বাচ্চাদের ৮ থেকে ৯ টার মধ্যে ঘুম পাড়ানোর চেষ্টা করবেন যাতে তারা খুব ভোরে উঠতে পারে। ফলে তার প্রতিদিনের রুটিন ভালো হবে।

কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় জেনে নিন

  • 1 বছর বয়স হওয়ার পূর্বে আপনার শিশুকে লবণ এবং চিনি পরিবেশন করবেন না।
  • যদি শিশুর খাবারে লবণ এবং চিনি যোগ করেন, তাহলে সে অবশ্যই বিপদে পড়বে।
  • কেননা লবণ এবং চিনি তাদের কিডনিতে প্রভাবিত করবে।
  • যখন শিশুকে একটি নতুন খাদ্য আইটেম দেবেন, তখন তিন দিন ধরে তা চালিয়ে যাবেন। ফলস্বরূপ, খাবারে অ্যালার্জি আছে কিনা তা বুঝতে পারবেন।
  • শিশুকে খাবার দেওয়ার পূর্বে হাত ধুয়ে নি্বেন। রান্নার সময় ফল ও সবজি ভালো করে পরিষ্কার করবেন।
  • সবশেষে, আপনার শিশুকে তাজা খাবার পরিবেশন করার চেষ্টা করবেন।

আশা করি ৬ মাস শিশুর খাদ্য তালিকা সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন। পাশাপাশি আমাদের ফেসবুক পেজ অনুসরণ করতে পারেন।

2 thoughts on “৬ মাস শিশুর খাদ্য তালিকা ২০২২

Leave a Reply

Your email address will not be published.